Friday, 31 July 2020

Bengali Essay on "Internet", "ইন্টারনেট বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

Essay on Internet in Bengali Language: In this article, we are providing ইন্টারনেট বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা for students. Bengali Essay/Paragraph on Internet.

Bengali Essay on "Internet", "ইন্টারনেট বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

কম্পুটার সিস্টেমের নেওয়ার্কই হল ইন্টারনেট। স্যাটালাইট, টেলিফোন এবং ঐচ্ছিক কেবেলের সাহায্যে এটি অপরের সাথে সংযযাজিত থাকে। এর সাহায্যে আমরা প্রচুর পরিমানের উন্নত ধরনের তথ্য এবং গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ পেয়ে থাকি। প্রথম দিকে শুধুমাত্র ইউএসএ-তেই ইন্টারনেট ছেয়ে গেছিল কিন্তু দশ বছরের মধ্যেই তা সারা বিশ্বে নিজের প্রতিভা বিস্তারে সক্ষম হয়েছে।
১৯৮৬ সাল থেকে ইন্টারনেটের উদ্ভাবন ঘটে এবং তখন শুধুমাত্র ইউএস-এর সৈন্য বিভাগের মধ্যেই অপটিক্যাল কেবেল নেটওয়ার্কের সাহায্যে এটি ব্যাপৃত ছিল। এরই সাথে এই নেটওয়ার্কটি দূরবর্তী অঞ্চলের মধ্যে ডেটা সঞ্চালনের জন্য স্যাটালাইটের ব্যবহার করত। পরবর্তীকালে ইন্টারনেটের এই বিস্তারের মধ্যে আমেরিকা ইউনিভারসিটিও সংযােজিত হয়। ইন্টারনেট সার্ভার নামে পরিচিত প্রধান রীতিটি ইউএসএ-তেও অবস্থিত ছিল। বর্তমানে, ইন্টারনেট সারা বিশ্বে তার প্রভাব বিস্তার করেছে। একটি টেলিফোন এবং একটি মােডেমের সংযােজন থাকলেই যে কোন ব্যক্তি তার কম্পুটারে ইন্টারনেট সংযােজিত করতে পারে। সরকারী বেসরকারী দুটি সংস্থাই ইন্টারনেট পরিষেবা দান করে এবং এটি ইন্টারনেট সার্ভিস প্রােভাইডার (আইএসপি) নামে পরিচিত।
তথ্য সরবরাহই ইন্টারনেটের সফলতার প্রধান কারণ। উন্নতমানই ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রধান কারণ হয়ে গেছে। ইন্টারনেটে একটি উন্নতমানের সফটওয়ার ব্যবহৃত হয়ে থাকে, এটি এইট টি এম এল, জাভা, ভি বি এবং এস জি এম এল দ্বারা উন্নত হয়ে উঠেছে। যাইহােক, কোন বিদ্যার্থীরই এ সম্পর্কে কোন ভয় থাকা উচিত নয় কারণ ইন্টারনেট চালনা করা খুবই সহজ কাজ। উইন্ডাে ৯৮ সফটওয়ার এবং ন্যাটমকোপ নেবিগেটর সফটওয়ারের সাহায্যে ইন্টারনেটের সংযােজন সম্ভব হয়ে ওঠে এবং এই দুটির মধ্যে একটি যেকোন বিদ্যার্থী তার কম্পুটারের সাহায্যে সংযােজিত করতে পারে।
বিভিন্ন রকম ই-মেল প্রেরণ্যের মাধ্যমে ইন্টারনেট উৎসাহদ্দীপক তথ্য প্রদান করে থাকে। আমরা বিশ্বের যেকোন প্রান্তে ই-মেল (ইলেকট্রনিক্স মেলিং সিস্টেমের ছােট রূপ) প্রেরণ করতে পারি। প্রতিটি ই-মেলের পৃষ্ঠার মূল্য মাত্র তিরিশ পয়সা। ইন্টারনেট বিভিন্ন রকম পরিষেবার সঞ্চয়াগার থেকে তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু করে দিয়েছে, এটি ওয়েবসাইট নামে পরিচিত। এই তথ্যগুলি শিক্ষা, চিকিৎসা, সাহিত্য, সফটওয়ার, কম্পুটার, ব্যবসা, বিনােদন, বন্ধুত্ব এবং অবকাশ সময় কাটানাের সাথে সম্পর্কিত। ব্যবসা সম্পর্কিত বিষয় ও ইন্টারনেটের সাহায্যে জানা যায় এবং এই বিষয়টি ইলেকট্রনিক কমার্স (ইকম) নামেই পরিচিত।
ইন্টারনেটের সহায্যে বিশ্বের যেকোন খবরের কাগজ, পত্রিকা এবং জার্নাল পাওয়া যায়। এমনকি এই উন্নতমানের তথ্যের সাহায্যে আমরা দূরদর্শন ও প্রাপ্ত করতে পারি। ইন্টারনেটের ভবিষ্যৎ-এর কোন সীমা নেই। ইন্টারনেটের জগতে ঢুকে গেলে বিদ্যার্থীরা কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বিশ্বের যাবতীয় খবর আরােহন করতে পারে।
কিছু বিদ্যার্থীদের মনে খুবই খারাপ অভিপ্রায় থাকে। তারা মিথ্যা ইমেল পাঠানাের পিছনে নিজেদের প্রচুর সময় নষ্ট করে। অন্য কেউ সেই ওয়েব সাইটটি দেখার পর তার কোন অর্থ উদ্ধার করতে পারে না। এটি খুবই খারাপ অভিপ্রায় এটা সম্বরম করা উচিত। উন্নতির জন্য ইন্টারনেট ব্যবহার করা উচিত অবনতির জন্য নয়।
বাৎসরিক ১৫০০ টাকা দিলে এমডিএনএল ইন্টারনেট সংযােজন প্রদান করে থাকে। পরবর্তীকালে এর দাম কমতে পারে। সময়ের সাথে সাথে। কম্পুটার, মােডেম এবং অন্যান্য সহযােগী হার্ডওয়ারের দামও কমতে পারে। একটা আইএসপি-এর জন্য একজন ব্যবহারকারীকে কম্পুটারের সাথে অবশ্যই টেলিফোন সংযােজিত করতে হবে। ভারতবর্ষে স্থানীয় নেটওয়ার্কের সাহায্যে এই সুযােগ দান করা হয়ে থাকে। শহরের যেকোন স্থানে ইন্টারনেট সংযােজন পাওয়া যায়। গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলিতে খুবই কম মূল্যে এবং সহজ উপায়ে ইন্টারনেট পরিষেবা পাওয়া যায়। 
ইন্টারনেট ভবিষ্যৎ-এর প্রযুক্তি। দূরবর্তী স্থানে অবস্থিত অফিসগুলি বর্তমান দিনে ইন্টারনেটের সাহায্যে পরিচালিত হয়ে থাকে। ইন্টারনেটের সাহায্যে খুবই কম মূল্যে, অতি দ্রুত প্রচুর পরিমানের তথ্য এবং চিত্ত বিনােদনীর সামগ্রী পাওয়া যায়। টেলিফোন সংযােজনে খুঁত থাকলে এর পরিষেবায় ব্যাঘাত ঘটে, বিদ্যার্থীরা যখন বিভিন্নরকম ওয়েবসাইটের সন্ধান করে তখন অনেক অপ্রয়ােজনীয় খবরও তাদের সামনে আসে যার ফলে তাদের প্রচুর সময় নষ্ট হয়। বিদ্যার্থীরা নিজেদের ওয়েবসাইট সৃষ্টি করতে পারে বা একটা নির্দিষ্ট ওয়েবসাইট পরিচালিত করতে পারে, এবং এর মাধ্যমে তারা ইন্টারনেট শিক্ষা প্রাপ্ত করতে সক্ষম হবে। ভবিষ্যৎ-এ তারা খুব সফলভাবে ইন্টারনেট পােগ্রাম এবং সফটওয়ার শিখতে সক্ষম হবে। প্রতিটি বিদ্যার্থীর ইন্টারনেট সম্বন্ধীয় জ্ঞান থাকা উচিত এবং এর সাহায্যে শুধুমাত্র ব্যবহার যােগ্য তথ্যই গ্রহণ করা উচিত। ভবিষ্যৎ প্রজন্মে সম্পূর্ণ তথ্য প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠবে এবং এই ভিত্তির মেরুদণ্ড হবে ইন্টারনেট।

SHARE THIS

Author:

I am writing to express my concern over the Hindi Language. I have iven my views and thoughts about Hindi Language. Hindivyakran.com contains a large number of hindi litracy articles.

0 comments: