Bengali Essay on "Shivaji Maharaj", "শিবাজী মহারাজ বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

Admin
0
Essay on Shivaji Maharaj in Bengali Language: In this article, we are providing শিবাজী মহারাজ বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা for students. Shivaji Maharaj in Bengali.

Bengali Essay on "Shivaji Maharaj", "শিবাজী মহারাজ বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

Essay on Shivaji Maharaj in Bengali Language
ভারতের ইতিহাসে অসংখ্য নায়কের নাম পাওয়া যায় এবং তাদের মহৎ কাজের কথাও জানা যায়। এক এক সময়ে এক এক বীরের আবির্ভাব ঘটেছে। সেই সমস্ত বীরেদের মধ্যে শিবাজী ভারতের ইতিহাসের পাতায় এক অবিস্মরণীয় স্থান দখল করে আছেন। তিনি ১৬২৭ সালে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। তার পিতা শাহজী একজন সামান্য জায়গিরদার ছিলেন। তার মা জিজাবাঈ একজন ধার্মিক এবং বুদ্ধিমান মহিলা ছিলেন। তিনি ছােট বেলা থেকেই শিবাজীকে এমনভাবে মানুষ করেছিলেন যাতে তিনি ভবিষ্যৎএ একটা তারকা হয়ে উঠতে পারেন। তিনিই তাঁকে মাতৃভূমিকে ভালােবাসতে শিখিয়েছিলেন। প্রথম থেকেই শিবাজী ছিলেন একজন নির্ভীক মানুষ এবং তিনি যথেষ্ট শক্তিশালী সৈন্য এবং সাহসী ছিলেন। তাই জন্য তাঁকে ‘হিন্দু জাতির রক্ষক’ বলে অভিহিত করা হােত।
তাঁর বাল্যকাল ওয়ার্ডস ওয়ার্থের — "Child is the father of man" কে সত্যি বলে প্রমাণিত করে। তিনি ছােটর থেকে বুদ্ধিমান, দেশ প্রেমিক, বিচক্ষণ এবং প্রতিশ্রুতি পালনকারী ছিলেন। প্রকৃত পক্ষে, তার মাই ছিল তার প্রথম শিক্ষক, তিনি শিবাজীকে পরিচালিত করতেন এবং তার সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন। তারই পরিচর্যায় তিনি ভারতের মহান বীর, দেশপ্রেমিক এবং নির্ভীক যােদ্ধায় পরিণত হতে পেরেছিলেন। মুসলিম আইনের নাগপাশে আবদ্ধ হয়ে দেশের মানুষকে যে অত্যাচার সহ্য করতে হােত তা তিনি সহ্য করতে পারতেন না। সেই কারণে তিনি কয়েকজন সেনাপতি, জায়গিরদার (ভূস্বামী) এবং অন্যান্য কিছু ব্যক্তিকে একত্রিত করে মুসলিম আইনের হাত থেকে ভারতীয়দের রক্ষা করতে চেয়েছিলেন। তিনি বিজাপুর এবং অন্যান্য কিছু মােঘল অধিশ্রিত অঞ্চলে আক্রমণ করে সেগুলি দখল করেন। ঔরঙ্গজেব বিষয়টি সহ্য করতে পারেন নি এবং শায়েস্তা খানকে প্রেরণ করেছিলেন তার সাথে যুদ্ধ করার জন্য। শিবাজী শায়েস্তা খানের বিরুদ্ধে একটা ধ্বংসাত্মক প্রতিরােধ গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছিলেন।
শিবাজী একজন দক্ষ রাজনীতিবিদ এবং একজন বুদ্ধিমান ব্যক্তি ছিলেন, তাই তিনি ঔরঙ্গজেবের রণনীতিকে সহজেই বুঝতে পেরেছিলেন। ঔরঙ্গজেবের একমাত্র উদ্দেস্য ছিল শিবাজীকে পরাজিত করা। ঔরঙ্গজেবের সেনাপতি অফজল খান শিবাজীকে মারার চেষ্টা করলে শিবাজী তার আগেই তাকে মেরে ফেলেছিলেন। একদা ঔরঙ্গজেব শিবাজীকে দিল্লীতে বন্দী করে রেখেছিলেন, কিন্তু তিনি নিজের বুদ্ধি এবং পরিকল্পনার জন্য একটা মিষ্টি ঝুড়ির মধ্যে আত্মগােপন করে সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হয়েছিলেন।
যুদ্ধ করে শিবাজী যে সম্পদ অর্জন করতেন তা তিনি গরীব প্রজাদের মধ্যে সমান ভাবে বন্টন করে দিতেন। যুদ্ধের সময়তেও শিবাজী চতুর্দিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতেন এবং এর মাধ্যমে তিনি তার নৈতিকতারও পরিচয় দিয়ে গেছে, তিনি বাচ্চা, মহিলা এবং বৃদ্ধদের কখনও স্পর্শ পর্যন্ত করতেন বরং তিনি তাদের সুরক্ষা প্রদান করতেন। এরই মাধ্যমে আমরা শিবাজীর দয়ালু হৃদয়ের পরিচয় পাই। এমনকি ঔরঙ্গজেবের রাজসভার একজন বিখ্যাত ঐতিহাসিক খাতিখান শিবাজী সম্পর্কে বলেছিলেন - "Shivaji is a hellish dog. But he has certain qualities. He is most secular and generous." শিবাজীর সময়কার ফ্রান্সের দূত মাউসের জারমেইন তাঁর নৈতিকতা এবং পার্থিব মহানতার জন্য তাকে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেছিলেন।
শিবাজী ভারতীয় ইতিহাসের পাতায় হিন্দুজাতির রক্ষা কর্তা এবং প্রতিরােধক হিসাবে চিরস্মরণীয় থাকবেন। তিনি হিন্দু জাতির শত্রুদের উচ্ছেদ করতে এবং মারাঠা রাজ্য প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ১৬৮০ সালে তার মত্যুর পর মারাঠা সাম্রাজ্য ধ্বংস হয়ে যায় কারণ সেনাপতি এবং জায়গিরদারদের মধ্যে বিবাদ সৃষ্টি হয়ে গেছিল। কিন্তু শিবাজীর জন্য ঔরঙ্গজেব হিন্দু জাতিকে ধ্বংস করার জন্য বধ্যপরিকর হয়েছিলেন। সমস্ত হিন্দু জাতি ভারতমাতার এই দুরন্ত ছেলের জন্য গর্ববােধ করে, তার দ্বারা কোটি কোটি ভারতীয় যুবক অনুপ্রেরণা লাভ করে থাকে। শিবাজীকে একজন অবিস্মরণীয় নায়ক হিসাবে চিহ্নিত করা যায়।

Post a Comment

0Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !