Friday, 20 March 2020

করোনা ভাইরাস সঙ্গে এই উপসর্গ চিকিত্সা এবং কিভাবে উদ্ধার করতে পারেন What is Coronavirus - Symptoms and Precautions in Bangali Language

করোনা ভাইরাস সঙ্গে এই উপসর্গ চিকিত্সা এবং কিভাবে উদ্ধার করতে পারেন করোনা ভাইরাস সঙ্গে এই উপসর্গ চিকিত্সা এবং কিভাবে উদ্ধার করতে পারেন What is Coronavirus - Symptoms and Precautions in Bangali Language

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ভারত, ব্রিটেন ও যুক্তরাজ্যসহ করোনা ভাইরাস এখন বিশ্বের 166 দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এবং 8,657 মৃত্যু ঘটিয়েছে ।

করোনা ভাইরাস Kovid 19 কি? এটি এড়ানোর জন্য আপনি সাবান এবং জল দিয়ে নিয়মিত এবং পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে হাত ধোয়া ।
করোনা ভাইরাস সঙ্গে এই উপসর্গ চিকিত্সা এবং কিভাবে উদ্ধার করতে পারেন What is Coronavirus - Symptoms and Precautions in Bangali Language
যখন কেউ করোনা ভাইরাস কাশি বা হাঁচি দিয়ে সংক্রমিত হয়, তখন তার কফ খুব সূক্ষ্ম কণা বাতাসে ছড়িয়ে পড়ে । এই কণাগুলির মধ্যে থাকে করোনা ভাইরাসের ভাইরাস ।

সংক্রামিত ব্যক্তির কাছে গেলে শ্বাসকষ্টের মাধ্যমে এই ভাইরাল কণা আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে ।

আপনি যদি এমন কোনও জায়গা স্পর্শ করেন যেখানে এই কণাগুলি পড়ে থাকে এবং তারপর একই হাত দিয়ে আপনার চোখ, নাক বা মুখ স্পর্শ করে, এই কণা আপনার শরীরে পৌঁছয় ।

কাশি এবং হাঁচি সময় টিস্যু ব্যবহার করে, হাত ধোয়া ছাড়া আপনার মুখ স্পর্শ না করা এবং সংক্রামিত ব্যক্তির এক্সপোজার এড়ানোর জন্য ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধ করা অত্যন্ত জরুরী ।

চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের মতে, ফেস মাস্ক কার্যকর সুরক্ষা প্রদান করে না ।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ সঙ্গে এই উপসর্গ চিকিত্সা?

এই করোনা ভাইরাস মানুষের শরীরে পৌঁছানোর পর তার ফুসফুস সংক্রমিত হয় । এর ফলে প্রথমে জ্বর, পরে শুকনো কাশি হয় । পরে শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা হতে পারে ।

ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করতে গড়ে পাঁচ দিন সময় লাগে । তবে বিজ্ঞানীরা বলছেন, কিছু মানুষের মধ্যে এই উপসর্গ দেখা দিতে পারে অনেক পরে ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (কে)-র মতে, শরীরে পৌঁছনো এবং লক্ষণ দেখা দেওয়ার মধ্যে এই ভাইরাসের ১৪ দিন পর্যন্ত থাকতে পারে । তবে কিছু গবেষক মনে করেন, সময় ২৪ দিন পর্যন্ত হতে পারে ।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখিয়ে মানুষের শরীরের চেয়ে বেশি ছড়ায় । কিন্তু অনেক বিশেষজ্ঞই মনে করেন, ওই ব্যক্তি অসুস্থ হওয়ার আগেই এই ভাইরাস ছড়াতে পারে ।

রোগের প্রাথমিক লক্ষণগুলি সর্দি ও ফ্লু-র মতোই, যা সহজেই বিভ্রান্তিকর হতে পারে ।

করোনা ভাইরাস কতটা মারাত্মক?

এই মৃতের সংখ্যা করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিসংখ্যানের তুলনায় অনেক কম । যদিও এই পরিসংখ্যানের উপর পুরোপুরি নির্ভর করা যাবে না, তবে সংক্রমণের সময় মৃত্যুর হার মাত্র এক থেকে দুই ফুট হতে পারে ।

বর্তমানে আক্রান্ত কয়েক হাজার মানুষ বর্তমানে বহু দেশে চিকিৎসাধীন, মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে ।

প্রায় 56,000 সংক্রামিত মানুষের তথ্য সংগ্রহ করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি গবেষণা জানাচ্ছে যে-
  • এই ভাইরাসের কারণে ৬ শতাংশ মানুষ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন । এগুলো ছিল ফুসফুস বিকল, সেপটিক শক, অঙ্গ বিকল ও মৃত্যুর ঝুঁকি ।
  • শতকরা ১৪ ভাগ মানুষ সংক্রমণের গুরুতর লক্ষণ দেখেছেন । শ্বাসকষ্টের সমস্যা ও তাড়াতাড়ি শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা ছিল তাঁদের ।
  • 80 শতাংশ মানুষ সংক্রমণের ছোটখাট লক্ষণ দেখেছেন, যেমন জ্বর ও কাশি । অনেকে এর কারণে নিউমোনিয়া পর্যবেক্ষণ করেন ।
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে বয়স বেশি হওয়ায় এবং ইতিমধ্যেই শ্বাসনালির রোগে (অ্যাজমা) আক্রান্ত হওয়ার কারণে গুরুতর অসুস্থতা সৃষ্টি হয়, যারা ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের মতো সমস্যায় ভোগেন ।

করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় রোগীর শরীরের শ্বাস-প্রশ্বাস এবং শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে সাহায্য করে, যাতে ওই ব্যক্তির শরীর নিজেই ভাইরাসের সঙ্গে লড়তে সক্ষম হয় ।

করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন তৈরির কাজ এখনও চলছে ।

আপনি যদি কোনও সংক্রামিত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসেন, তাহলে কিছু দিনের জন্য অন্যদের থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেওয়া হতে পারে ।

পাবলিক হেলথ ইংল্যান্ড জানিয়েছে, যারা মনে করছেন তারা আক্রান্ত, তাদের উচিত ডাক্তার, ফার্মেসি বা হাসপাতালে যাওয়া এড়িয়ে চলা এবং ফোনে বা অনলাইনের মাধ্যমে তাদের এলাকার স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছ থেকে তথ্য পাওয়া ।

যেসব মানুষ অন্য দেশে ভ্রমণ করেছেন এবং যুক্তরাজ্যে ফিরে এসেছেন, তাঁদের কিছুদিন অন্যদের থেকে নিজেদের আলাদা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে ।

অন্যান্য দেশও এই ভাইরাস এড়ানোর জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে, যেমন নিজ দেশে স্কুল কলেজ বন্ধ করা এবং সব ধরনের বৈঠক বাতিল করা ।

মানুষের জন্য কী ভাবে সাবধানতা অবলম্বন করা যায়, সে বিষয়েও তথ্য প্রকাশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ।

যখন সংক্রমণের লক্ষণগুলি দেখা দেয় তখন ব্যক্তিটি তাদের স্থানীয় স্বাস্থ্যসেবা কর্মকর্তা বা কর্মচারীর সাথে যোগাযোগ করতে হবে । অতীতে যে সব মানুষ করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছে তাদের প্রদর্শিত হবে ।

স্বাস্থ্য পরিষেবা অফিসাররা হাসপাতালে আসা সব রোগীকেই পরীক্ষা করবেন, যাঁদের ফ্লু-সহ (সর্দি সর্দি ও শ্বাসকষ্ট) ।

পরীক্ষার ফলাফল না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলা হবে এবং নিজেকে অন্যদের থেকে দূরে রাখুন।

করোনা ভাইরাস কতটা দ্রুত ছড়াচ্ছে?

প্রতিদিন সারা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের শতাধিক ঘটনা ঘটেছে । কিন্তু এ-ও মনে করা হচ্ছে, অনেক ক্ষেত্রেই হয়তো এখনও স্বাস্থ্য সংস্থার চোখ এড়িয়ে পালাতে হয়েছে ।

সর্বশেষ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের 166 দেশে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাস সংক্রমণের 207,860 ঘটনা নিশ্চিত করা হয়েছে ।

চীন, ইতালি, ইরান ও কোরিয়া ভাইরাস সংক্রমণের সবচেয়ে বেশি ঘটনা জানিয়েছে ।

SHARE THIS

Author:

I am writing to express my concern over the Hindi Language. I have iven my views and thoughts about Hindi Language. Hindivyakran.com contains a large number of hindi litracy articles.

0 comments: