Bengali Essay on "Exam Stress / Phobia", "পরীক্ষার আতঙ্ক রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

Admin
0
Essay on Exam Stress in Bengali Language : In this article, we are provoding পরীক্ষার আতঙ্ক রচনা for students. Bengali Essay on Exam Phobia.

Bengali Essay on "Exam Stress / Phobia", "পরীক্ষার আতঙ্ক রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

স্বয়ং যীশু খ্রীষ্ট বলে ছিলেন যে, "God! Do not put us to test" পরীক্ষা মানুষের জীবনকে নীরস করে তােলে, মানসিক চাপবৃদ্ধি করে এবং তার সঠিক চিন্তার পথে বাধার সৃষ্টি করে এবং তাকে অক্ষম করে তােলে। পরীক্ষার্থীগণ সর্বদাই পরীক্ষা নিয়ে চিন্তা করে, এবং ব্যর্থতার চিন্তায় হতাশগ্রস্থ হয়ে পড়ে। খারাপ স্বপ্ন তাদেরকে তাড়া করে বেড়ায় এবং একটা মৃদু ভৎর্সনা প্রতিদিন তাদের পথে বাধার সৃষ্টি করে।
পরীক্ষার আগে, বিদ্যার্থীরা সমস্ত রকম মনােরম বিষয়ের থেকে বঞ্চিত হয়। তারা মাঠে যেতে পারে না। তারা তাদের পিকনিক বাতিল করে এবং সাম্প্রতিক কোন সিনেমা দেখার কথা ভুলে যায়। তারা তাদের বইয়ের জগতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। এক কাপ চায়ে চুমুক দেওয়ার সময়তেও তারা পড়ে যায়। তারা বিছানায় শুয়েও পড়া আওড়াতে থাকে। তারা প্রশ্ন নিয়ে আলােচনা করে, বই নিয়ে কথা বলে এবং উত্তর নিয়ে স্বপ্ন দেখে। কেউ উচ্চাসনে বসে, কেউ ঘরের কোণায় বসে কেউ চেয়ারে বসে পড়াশােনা করে।
পরীক্ষার আগের দিন রাতে পরীক্ষার আতঙ্ক সর্বাধিক বৃদ্ধি পেয়ে যায়। অনেকে ঠিকমতন ঘুমাতে পর্যন্ত পারে না। ছাত্র-ছাত্রীরা অনেক সকালেই ঘুম থেকে উঠে পড়ে এবং প্রার্থনা করতে শুরু করে। পরীক্ষার হলের সামনে গিয়ে প্রত্যেকেই মনে করে মাথা দিয়ে সব বেরিয়ে গেছে। কোন বন্ধু বলে এই প্রশ্ন অবশ্যই আসবে। অপরজন জিজ্ঞাসা করবে এই প্রশ্নটা কেমন তৈরি?' এতে ছাত্ররা ঘাবড়ে গিয়ে তাড়াহুড়াে করে সেই প্রশ্নটাই দেখতে শুরু করে।
পরীক্ষার হলে ঢুকে নিজের আসন গ্রহণ করে, প্রত্যেক ছাত্র ভগবানের কাছে প্রার্থনা করে এবং পুনরায় চোখ বােলাতে থাকে। যদি প্রশ্ন পত্র কঠিন। হয় তবে জল পান করার ধুম পড়ে যায়। অনেক সময় সহজ প্রশ্নকেও কঠিন বলে মনে হয়। উত্তর লেখার সময় মনে হয় সবই পড়া ছিল কিন্তু মাথা থেকে বাষ্পের মতন উবে গেছে।
এমন কি পরীক্ষার পরেও, ছাত্রদের এই আতঙ্ক তাড়া করে বেড়ায়। যে যার তার বন্ধুকে বলে আমার সামান্য সন্দেহ আছে।’ বা ‘আমি হয়তাে এই উত্তরটা ঠিক লিখতে পারি নি। সে প্রতিদিন নিজের নম্বর গণনা করার চেষ্টা করে এবং যে একটা অতি সাধারণ ফলাফল পাবে বলে মনে করে। রেজাল্ট না বেরানাে পর্যন্ত এই ভয় থেকেই যায়। সে খবরের কাগজে নিজের নম্বর খোঁজার চেষ্টা করে। সেই সময়টা খুবই যন্ত্রণাদায়ক হয়ে ওঠে কারণ ব্যর্থ ছাত্রদের সহ্য করতে হয় বন্ধুদের, আত্মীয়দের এবং প্রতিবেশীদের উপহাস জনক কথাবার্তা। এমনকি প্রত্যক্ষ করার পরেও তার মন বলে ‘পরীক্ষক কোন ভুল করেননি তাে? কোন দুর্বল ছাত্রের সাথে আমার খাতা বদলে যায় নি তাে?’ প্রতিটি ছাত্রের কাছে পরীক্ষার আতঙ্ক একটি দুঃখজনক অনুভূতি বলে গণ্য হয়।

Post a Comment

0Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !