Bengali Essay on "Computer", "কম্পিউটারের প্রয়োজনীয়তা বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

Admin
0
Essay on Computer in Bengali Language: In this article, we are providing কম্পিউটারের প্রয়োজনীয়তা বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা for students. Bengali Essay/Paragraph on Computer.

Bengali Essay on "Computer", "কম্পিউটারের প্রয়োজনীয়তা বাংলা অনুচ্ছেদ রচনা" for Class 5, 6, 7, 8, 9 & 10

খুবই দ্রুতগতিতে কার্য সম্পাদনের জন্য যে ইলেকট্রনিক যন্ত্রের ব্যবহার করা হয়, তারই নাম কম্পুটার। ডেটা সৃষ্টির যন্ত্র হিসাবে কম্পুটার কাজ করে। এছাড়া এটিতে প্রচুর পরিমাণে ডেটা সংরক্ষিত থাকে। এই ডেটাগুলি হল টেকস্ট, পিচ্চার, ভয়েস, নম্বর, ফটোগ্রাফ এবং অন্যান্য ধরনের তথ্য, এগুলি মানুষ তার দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার হয়। কম্পুটার ব্যতীত জীবনের কথা চিন্তাই করা যায় না। প্রকৃত পক্ষে বর্তমান যুগটি কম্পুটার এবং তার প্রযুক্তিরই বশে, সাধারণভাবে এটি তথ্য প্রযুক্তি নামে পরিচিত।
কম্পুটারের সাহায্যে স্কুলের বাচ্চারা শিক্ষার নূতন রীতি, গ্রাফিক ডিজাইন, গেমস এবং শিক্ষা সম্বন্ধীয় অন্যান্য ব্যবহারযােগ্য বিষয় শিখে থাকে। কলেজের বিদ্যার্থীরা এর সাহায্যেই তাদের রিপাের্ট তৈরি করে থাকে। অফিসে বিভিন্ন পদে নিযুক্ত কর্মচারীগণ এরই সাহায্যে গণনা, উৎপাদন এবং সফটওয়ারের উন্নতিসাধন করে থাকে। গ্রন্থাগারের বইগুলিও এই কম্পুটারের সাহায্যেই সুসজ্জিত রাখা হয়। কলকারখানাতেও এর গুরুত্ব অপরিসীম। এটি স্যাটালাইটকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং উন্নতমানের অস্ত্রশস্ত্রও নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। ইন্টারনেটের সাহায্যে যাতে আবাল বৃদ্ধ বণিতারা তাদের চাহিদা পূরণ করতে পারে, সেদিকেও তারা দৃষ্টি রাখে। প্রকৃতপক্ষে কম্পুটারের সাহায্যে মানুষের জীবনের বহুমুখী চাহিদা পূরণ হয় এবং এটির সাহায্যে দক্ষতার সাথে তাদের কার্য সম্পাদিত হয়।
বর্তমান যুগে স্কুলের বিদ্যার্থীদের জন্য কম্পুটার শিক্ষাকে আবশ্যক করে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন রূপে কম্পুটার পাওয়া যায়। কম্পুটার শিক্ষা গ্রহণ করার জন্য 16MHz গতিসম্পন্ন কম্পুটার ব্যবহার করা হয়ে থাকে (এটি সিপিইউ গতি নামে পরিচিত), এতে 1.2 MB-র সঞ্চয় সক্ষমতা সহ এইচ ডি ডি থাকে এবং 32 MB বিশিষ্ট্য র্যামের প্রয়ােজন হয়। এই ধরনের একটি কম্পুটারের সাহায্যে একজন বিদ্যার্থী এলওজিও, বেসিক, উইনড্রেস, গেমস, বিভিন্ন শিক্ষা সম্বন্ধীয় বিষয় এবং ইন্টারনেট শিখে থাকে।
প্রকৃতপক্ষে কম্প্যুটার গ্রহণ করার ফলে ভারতের সমাজ, শিক্ষা এবং শীল্পগত দিকে অভিনব বিকাস দেখা গেছে, কম্পুটার শিক্ষার জোয়ার ভারতে এসেছে পশ্চিমী দেশ গুলির থেকেই। ইউ.এস.এর প্রতি দুজন বিদ্যার্থীর মধ্যে একজন অবশ্যই কম্প্যটার জানে, সেখানে ভারতের একশাে জন বিদ্যার্থীর মধ্যে একজন কম্পুটার জানে, আবার ইউ.এস.এ.র প্রতি চারজন বিদ্যার্থীর মধ্যে দুজন অবশ্যই ইন্টারনেট সম্পর্কে জানে, কিন্তু সেখানে ভারতের পঞ্চাশজন বিদ্যার্থীর মধ্যে মাত্র একজন ইন্টারনেট সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হয়ে থাকে।
একজন বিদ্যার্থী খুব সহজেই কম্পুটারে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে। ছাত্রছাত্রীগণ তাদের বিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন ক্লাসে যােগদান করে কম্পুটার শিখতে পারে। কম্পুটার শেখা খুবই সহজ এবং এটা যেকোন ছাত্রের বন্ধু হয়ে উঠতে পারে। এটার দ্বারা একজন ছাত্রের দক্ষতা বৃদ্ধি পায় এবং সে আরও বেশী জ্ঞান আরােহন করতে পারে। এর সাহায্যে শুধু যে বিদ্যার্থীদের মানসিক উন্নতি সাধিত হয় তাই না বরং এর সাহায্যে বিদ্যার্থীরা শিক্ষার সাথে সাথে বিনােদনেরও সুযােগ পায়।
ভবিষ্যৎ-এ প্রায় প্রতিটি বিদ্যার্থীর কাছেই কম্পুটার থাকবে অথবা তারা খুব সহজেই সেটাকে চালনা করতে পারবে। প্রায় প্রতিটি ব্যাঙ্ক এবং বেশীর ভাগ কলকারখানাই কম্পুটারের সাহায্যে চালিত হয়, স্কুল, কলেজেও উন্নতধরনের কম্পুটার বিদ্যমান। বর্তমান যুগের কম্পুটারগুলি প্রায় 533 MHZ গতিসম্পন্ন হয়ে থাকে কিন্তু সেগুলি খুবই মূল্যবান। যে সমস্ত কম্পুটারের সাহায্যে ছাত্ররা তাদের প্রয়ােজন পূরণ করতে পারে সেগুলি তিরিশ হাজার টাকার মধ্যেই পাওয়া যায়। ভবিষ্যৎ-এ এর দাম আরও কমবে।
ছাত্রদের মানসিক বিকাশের জন্য এবং শিক্ষার উন্নতির জন্য কম্পুটার অপরিহার্য, কম্পুটার সফটওয়ার হল একটি প্রতিশ্রুতি দায়ক ক্ষেত্র এবং ছাত্ররা এই ক্ষেত্রের থেকেই নিজেদের ভবিষ্যৎ গড়ে তুলতে পারে। ইউ.এস.এ-তে বুদ্ধি সম্পন্ন পােগ্রামের যথেষ্ট চাহিদা আছে, এরই সাথে এই চাহিদা হউকে, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যাণ্ডেও ছেয়ে গেছে। কোন বিদ্যার্থী যদি কম্পুটার নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করে তবে সে একটি সুনিশ্চিত ভবিষ্যৎ-এর অধিকারী হতে পারে।

Post a Comment

0Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !