Bengali Essay on "Cinema and Its Effects", "সিনেমা বাংলা রচনা" for Students

Admin
0
Essay on Cinema and Its Effects in Bengali language : In this article "সিনেমা বাংলা রচনা", "সিনেমা এর ব্যবহার এবং অপব্যবহার নিবন্ধ" for Students.

Bengali Essay on "Cinema and Its Effects", "সিনেমা বাংলা রচনা" for Students

বর্তমান দিনে আমােদ প্রমমাদের একটি অন্যতম জনপ্রিয় উৎস হল সিনেমা। সাধারণ মানুষরা অনেক সময় সিনেমার অভিনেতা-অভিনেত্রী এবং তাদের দক্ষতা সম্পর্কে আলােচনা করে থাকে। যুবক-যুবতীরা সিনেমা জগৎএর সাম্প্রতিক ঘটনা সম্পর্কে জানতে আগ্রহী থাকে। নিয়মিত সিনেমা দেখার লােক সংখ্যা খুব দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সিনেমার পত্রিকাগুলি এবং সেই সম্পর্কিত অন্যান্য পত্র-পত্রিকাগুলি বিক্রি হওয়ার হারও বৃদ্ধি পেয়েছে।

সিনেমার সাথে শিক্ষা সম্পর্কিত বিষয়টিও সংযােজিত। কোন ছাত্র যদি কোন বিষয় পড়ার সাথে সাথে তা দেখার সুযােগ পায় তবে সেই বিষয়টি তার মনের মধ্যে চিরকালের জন্য গেঁথে যায়। সেই জ্ঞানটি আমাদের মনের মধ্যে চিরকালের জন্য থেকে যায়। আমরা অনেক কিছু পড়ি কিন্তু সেগুলিই যখন আমরা স্ক্রীনে দেখতে পাই তখন সেই সম্পর্কে আমাদের মনে ছাপের সৃষ্টি হয়।

আমাদের বিদেশে যাওয়ার মতন সামর্থ এবং সময় না থাকলেও সিনেমা হল থকে আমরা বিদেশী দেশগুলি সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারি। এর সাহায্যে আমরা সেই দেশের সংস্কৃতি, জীবনধারা এবং ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে পারি। সাম্প্রতিক আমি ‘দিলবালে দুলহনিয়া লে জায়েঙ্গ’ - নামক সিনেমাটি দেখেছি। এই সিনেমাতে সুইজারল্যান্ডের খুব সুন্দর দৃশ্য আছে। এই সিনেমাটা দেখার পর আমি বুঝেছি যে সুইজারল্যান্ডের বাসিন্দারা কতটা পরিশ্রমী হয়। যদিও এটি একটি ছােট্ট দেশ তবুও এটিকে যথেষ্ট সুন্দরভাবে শৈল্পিক রূপ দিয়ে সাজানাে হয়েছে। এখানকার বাড়ি, রাস্তাঘাট, হােটেল, রেলওয়ে স্টেশন এবং খামারগুলি পরিকল্পনার সাথে গঠন করা হয়েছে। এছাড়াও আরও অনেক সিনেমা আছে যার মাধ্যমে শিক্ষা, রােমাঞ্চ এবং আমােদ-প্রমােদ সবই পাওয়া যায়।

সিনেমা বিদ্যার্থীদের ইতিহাস, ভুগােল এবং বিজ্ঞান এই তিনটি বিষয় পড়তে সাহায্য করে। এর সাহায্যে এই রুক্ষ বিষয়গুলিকেও আকর্ষণীয় করে তােলা যায়, সিনেমা এবং টিভির মাধ্যমে বিভিন্ন রকম বিষয় সম্পর্কে উদাহরণ পাওয়া যায় এবং নূতন অভিনেতাগণও তার প্রাঞ্জল বর্ণনা দিয়ে থাকে ফলে সিনেমা এবং টিভির মাধ্যমে এই বিষয়গুলি সম্পর্কে শিক্ষা গ্রহণ করা সহজ হয়ে ওঠে। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় দূরদর্শনে দ্যা সােউড অফ টিপু সুলতান’ নামক একটা ঐতিহাসিক ধারাবাহিক সম্প্রচারিত করা হােত, এটি ছিল একটা সফল ঐতিহাসিক ধারাবাহিক।

সিনেমাকে নৈতিকতার প্রচারক এবং শিক্ষক বলা যায়। প্রতিটি ভালাে সিনেমায় একাট গ্রহণযােগ্য নৈতিক অধ্যায় থাকে। সাবিত্রী’ সিনেমাতে একজন স্ত্রীর ধার্মিকতার পরিচয় পাওয়া গেছে এবং এর সাহায্যে সে তার স্বামীকে মৃত্যুর মুখ থেকেও ফিরিয়ে আনতে পেরেছিল। কৃষ্ণ সুদামা সিনেমাতেও ভগবানের প্রতি ভক্তির রূপ খুঁজে পাওয়া যায়, যার সাহায্যে সুদামা আর্থিক অনটনের হাত থেকে মুক্তি পেয়েছিল এবং ধন ও শক্তির অধিকারী হতে পেরেছিল। শাহেদ-এর মতন সিনেমাগুলি আমাদের মনে . শহীদত্বের বােধ জাগ্রত করে।

এগুলি হল সিনেমার উজ্জ্বল দিক। এখন আমরা এর অন্ধকার দিকটির দিকে নজর দেব। প্রতিটি গােলাপেই কাটা থাকে। একটা খুবই বেদনা দায়ক ঘটনা হল ফ্লিম ইন্ড্রাস্টি ধীরে ধীরে টাকা তৈরির ইন্ডাস্ট্রিতে পরিণত হচ্ছে। সিনেমার প্রস্তুকারকগণ এর নৈতিক দিকটিকে বর্জন করে শুধুমাত্র পয়সার দিকটিকেই লক্ষ্য করে। আধুনিক সিনেমাগুলি যুবক-যুবতীদের মস্তিষ্কগুলিকে দূষিত করে তুলছে। তাদেরকে অতি সহজেই আধুনিক ফ্যাশানের জালে জড়িয়ে দিচ্ছে। তাদের মুখে শােনা যায় নােংরা এবং কদর্য : সঙ্গীত। অমার্জিত দৃশ্যগুলি যুবকৃযুতীদের চরিত্রকে একেবারেই পরিবর্তিত করে দিচ্ছে। | যখন ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি তার গভীর ঘুম কাটিয়ে উঠে বসে এবং যুবকযুবতীদের মনে দাগ কেটে যাওয়ার মতন কিছু অবিস্মরণীয় সিনেমা সৃষ্টি করে তখনই একটা সঠিক সময়ের আবতারণা ঘটে। আজ যারা ছােটো কাল তারাই দেশের দায়িত্ব ভার গ্রহণ করবে। সুতরাং এর সাহায্যে আমরা আত্মত্যাগ, কঠোর পরিশ্রম, সততা, নিঃস্বার্থপরতা এবং সুন্দর ব্যবহার প্রভৃতি বিষয় সম্পর্কে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারি। এই দৃষ্টিভঙ্গীর দিকে অনেক বেশী প্রাধান্য দেওয়া উচিত। | সিনেমাগুলিকে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা যায় — গঠনাত্মক, সামাজিক, নৈতিক, ঘটনামূলক, প্রেম সংক্রান্ত, কৌতুহলােদ্দীপক এবং শিক্ষামূলক - সুতরাং প্রতিটি মানুষ তাদের নিজেদের পছন্দ অনুসারে বিনােদনের সুযােগ পেয়ে থাকে।

সর্বোপরি বলা যায়, সিনেমার একটা শিক্ষামূলক এবং গঠনাত্মক মূল্য আছে। মনােরঞ্জনের এই উপায়টিতে পয়সা এতই কম লাগে যে, যেকোন গরীব ব্যক্তিও এতে অংশগ্রহণকরতে পারে। এর দ্বারা শুধুমাত্র যে জন সাধারণের হিত সম্পন্ন হয় তাই নয় কিছু কিছু সিনেমা সরকার এবং সিনেমার নির্মাতাগণ একত্রিত হয়ে তৈরী করেন সেগুলির মাধ্যমে নৈতিক এবং সৃজনশীল চিন্তার প্রকাশ ঘটানাে সম্ভব হয়।

Post a Comment

0Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !